Powered by Hooligan Media

৩৫৬ জনকে ০৯ টি পদে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োগ 2022 প্রকাশ

৩৫৬ জনকে ০৯ টি পদে নিয়োগ দেবে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী:

আপনারা যারা সরকারি চাকরি খুঁজছেন তাদের জন্য সুখবর। বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর শূন্য পদে জনবল নিয়োগ দেয়া হবে। 

দীর্ঘসময় অপেক্ষার পর আবার নতুনভাবে শুধুমাত্র ০৯ টি পদের জন্য আনসার বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। আমরা জানতে পেরেছি বাংলাদেশ থেকে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী ৩৫৬ জনকে নিয়োগ দেবে তাদের এই প্রতিষ্ঠানে তাই আমরা মনে করেছি এই সংবাদ বাংলাদেশের বেকার মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া প্রয়োজন এর জন্য আমরা আমাদের এই ওয়েবসাইটে আজকের বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োগ ২০২২ প্রকাশ করেছি।

উক্ত পদে নারী-পুরুষ উভয় আবেদন করতে পারবেন। আগ্রহী প্রার্থীরা পোস্টাল অর্ডার বা ডাক যোগের এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। আগ্রহ ও যোগ্যতা থাকলে আপনিও বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর চাকরির আবেদন করতে পারেন।

Powered by Hooligan Media

প্রতিষ্ঠানের নাম বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী
প্রকাশের সূত্র অনলাইন
চাকরির ধরন সরকারি চাকরি
কতটি পদ খালি রয়েছে? ০৯ টি
কত জনকে নিয়োগ দেবে? ৩৫৬ জন
শিক্ষাগত যোগ্যতা চিত্র ফলো করুন
চাকরির বয়সসীমা ১৮-৩০ বৎসর (নোটিশ দেখুন)
প্রতিমাসে আয় পদ অনুযায়ী বিবেচনা করা হবে।
কিভাবে আবেদন করব? অফিশিয়াল চিত্র দেখুন
প্রকাশের তারিখ ১২,২২ অক্টোবর ২০২২
কবে থেকে আবেদন শুরু হবে? ১৩ অক্টোবর ২০২২
আবেদনের চূড়ান্ত শেষ তারিখ কবে? ১০ নভেম্বর ২০২২
অফিশিয়াল ওয়েবসাইট www.ansarvdp.gov.bd
আমাদের ওয়েবসাইট https://jobcallbd.com

আরো সার্কুলার দেখুন:


বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োগ 2022

বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োগ 2022

চাকরির সূত্র: দৈনিক ইত্তেফাক, ২২ অক্টোবর ২০২২

অনলাইন আবেদন সংক্রান্ত তথ্য নিচে দেখুন বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োগ 2022 বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োগ 2022

সূত্র: দৈনিক ইত্তেফাক, ১২ অক্টোবর ২০২২

আবেদন শুরুর তারিখ: ১৩ অক্টোবর ২০২২

আবেদনের শেষ তারিখ: ১০ নভেম্বর ২০২২

অনলাইনে আবেদন করুন: http://www.ansarvdp.gov.bd

আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা পার্টি সরকার শৃঙ্খলাবদ্ধ স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীকে যাজকীয় এলাকায় নিরাপত্তা ও নিরাপত্তা বজায় রাখতে এবং দেশের আর্থ-সামাজিক পুনর্গঠনের জন্য প্রস্তুত করতে সহায়তা করে। বৃটিশ ভারত (১৯৪৭) বিভক্ত হওয়ার পরপরই ভারত ও পাকিস্তান দুটি পৃথক অধিরাজ্যে, আইন-শৃঙ্খলা ভঙ্গের পাশাপাশি দুটি সরকারের মধ্যে জনগণের বৃহৎ আকারে অভিবাসন ঘটে।

পরিস্থিতির তীব্রতা পূর্ব পাকিস্তানের সরকার অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ ও শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য একটি স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী গঠন করতে শুরু করে। আনসার আইন ১৯৪৮ সেই অনুযায়ী তৎকালীন পূর্ববঙ্গ আইনসভায় প্রণীত হয়েছিল।পরবর্তীতে, সেই সঠিক বছরে আনসার বিধি (১৯৪৮) নামে প্রয়োজনীয় বিধি জারি করা হয়। ১৯৪৮ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত আনসারদের নিয়ে গঠিত সম্প্রদায়টি ন্যাশনাল সার্ভিস বোর্ডের নিয়ন্ত্রণে ছিল। এটি ১৯৭৩ সালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণে প্রাপ্ত হয়।

১৯৮০সালে, বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (আনসার) নামে একটি ভিন্ন ক্যাডার তৈরি করা হয়। আনসাররা ১০৪৮ সাল থেকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় এবং স্থানীয় অবকাঠামো নির্মাণের জন্য সংস্থান সংগ্রহে নিযুক্ত রয়েছে। পাকিস্তানের প্রথম দিনগুলিতে, যখন পুলিশ অবস্থান এবং পুলিশ কর্মীদের সংখ্যা খুবই সংকীর্ণ ছিল, আনসাররা জনশৃঙ্খলা রক্ষা করত। দেশের দূরবর্তী কোণে। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে ১৯৬৫-যুদ্ধের সময় সীমান্ত প্রদেশগুলিকে পাহারা দেওয়ার জন্য তাদের প্রায় সমস্ত সীমান্ত চৌকিতে মোতায়েন করা হয়েছিল।

১৯৭১ সালে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আনসার ও অফিসার বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে প্রবেশ করেছিল। পাকিস্তানি সামরিক সার্বভৌমরা সংগঠনটিকে অস্বীকার করে প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছিল এবং অনেক আনসার ও তাদের কর্মকর্তাদের ধ্বংস করেছিল যারা সময়মতো পালাতে পারেনি।

মোট 9 জন কর্মকর্তা এবং ৬৩৫ জন আনসার ও কর্মচারী স্বাধীনতার কারণে তাদের শক্তি হারিয়েছেন বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে দুজনকে বীর বিক্রম ও বীর প্রতীক বীরত্ব পদক দেওয়া হয়। ১২ জন আনসার ১৭ এপ্রিল ১৯৭১ সালে মুজিবনগরে নির্বাসিত বাংলাদেশ সরকারের কর্তৃপক্ষকে গার্ড অব অনার প্রদান করে। আরো বিস্তারিত জানতে গুগলের সার্চ করুন।

Leave a Comment