Powered by Hooligan Media

অদ্ভুত নেশা। অবিশ্বাস্য তথ্য। আজব নেশা।

অদ্ভুত নেশা। অবিশ্বাস্য তথ্য। আজব নেশা।

অদ্ভুত আসক্তি আমাদের বিশ্বের প্রতিটি ব্যক্তির কিছু কল্যাণ বা আসক্তি আছে। কারো নেশা ভালো বাড়ি তৈরি করবে আবার কারো নেশা হবে দামি ট্রেডমার্ক গাড়ির প্রতি। ইত্যাদি বিভিন্ন আসক্তি বা ইচ্ছা আমাদের মধ্যে বিদ্যমান এবং এটি প্রত্যাশিত। কিন্তু এই নির্ভরতা যদি একটু অন্যরকম হয়? তো চলুন জেনে নিই কিছু চমকপ্রদ আসক্তি সম্পর্কে।

অদ্ভুত নেশা। অবিশ্বাস্য তথ্য। আজব নেশা।

অবিশ্বাস্য তথ্য।

রক্তের নেশাঃ

যদিও পৃথিবীতে হাজার হাজার নেশার প্রভাব রয়েছে, তবে এটি বেশ লক্ষণীয় যে, রক্তে মাতাল হওয়া আমাদের এবং সমগ্র প্রাণী পরিবারের জীবনের অন্যতম প্রধান উপাদান। এখানে আমি সরাসরি পানির মতো রক্ত খাওয়া সম্পর্কে কথা বলছি। হ্যাঁ, এমনই একজন আসক্ত নারীর নাম হচ্ছে মিশেল। মানুষ যেমন হার্ড ড্রিংকের সাথে মিশ্রিত পানি পান করে, তেমনি তারা প্রতিদিন প্রায় এক লিটার রক্ত কফির সাথে মিশিয়ে পান করে। কিন্তু শূকরের রক্ত তার কাছে অনেক প্রিয়।

Powered by Hooligan Media

রক্তের নেশাঃ

একটি টেলিভিশন প্রদর্শনীতে তিনি বলেছিলেন – “রক্ত আমার কাছে জলের মতো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমি যখন পাঠ্যপুস্তক পড়ি, টিভি দেখি, আরাম করি বা রং করি তখন আমি রক্ত খেতে ভালোবাসি।”

মৃত দেহের নেশাঃ

মৃতদেহ দেখলে একাধিক মানুষ কিন্তু আতঙ্কিত হয়। অনেকে আবার শান্ত শরীরের কাছে যেতে ভয় পায়। কিন্তু লুই স্কোয়ারিসি নামে একজন ৪২ বছর বয়সী ভদ্রলোক যখনই শুনতেন যে তার শহরের কেউ মৃত্যুবরণ করেছে তখন সে সাথে সাথে তার বাড়িতে এসে হাজির হয়ে পড়তো। এতে তিনি সম্পূর্ণ সুখ অনুভব করেন। এটা কখনই বোঝা যায় না যে, তার শহরে একজন ব্যক্তি মারা যাবে এবং লুইস সেখানে থাকবে না।

শরীর মডিফিকেশনঃ

একটি নতুন গাড়ি কেনার সময়, একাধিক ব্যক্তি কিছু নতুন সুবিধা গণনা করে এটিকে অনেক পরিবর্তন করে এবং অনেকে অনেক স্টাইলের স্টিকার দেয়। অর্থাৎ এক কথায় রূপান্তর। কিন্তু আপনি কি কখনো শরীরের রূপান্তরের কথা শুনেছেন?

বিশ্বের অনেক মানুষ এটিকে আসক্তি বা নেশা বলে মনে করেন। প্রায় প্রতিনিয়ত তারা তাদের শরীরে বিভিন্ন বেদনাদায়ক উল্কি বা ছিদ্র ধারণ করে, এবং ল্যাসিরা কানের বৃত্তের মতো ছিদ্রে কিছু ধরণের বস্তু রাখে। এটা তাদের কাছে একটা আবেশের মতো। এর মাধ্যমে তারা অনেক আনন্দ পায়। রূপান্তরের সময় তারা যে ব্যথা অনুভব করে তা তাদের কাছে কিছুই নয়, তবে আপনি যদি তাদের সামান্য চর দিয়ে আঘাত করেন তবে তাঁরা রাগে ফুলে ফেঁপে উঠবে।

কিন্তু আপনি কতটা শরীরের রূপান্তর করেন তা কোন বিষয় নয়, আপনার ঈশ্বর প্রদত্ত শরীরকে তার ইচ্ছামত তৈরি করে দিয়েছে সেটি নিয়ে আনন্দিত থাকাই উচিত কেননা ঈশ্বর কখনো অসুন্দর কোন জিনিস তৈরি করতে পারে না।

কাঁচ খাওয়ার নেশাঃ

পৃথিবীতে খাবারের অভাব নেই। যদিও আপনি সম্ভবত জানেন না যে লোকেরা কাচ খেতে পারে এবং এটি একটি গভীর নেশাতে পরিণত হতে পারে। এমনই একজনের নাম জোশ। যখন সে হার্ড টু ড্রিংক খায়, তখন সে হার্ড ড্রিঙ্কের চেয়ে কাচের বোতল ভালো খেতে চায়। এত দূরের জীবনে অর্থাৎ আর জীবনে তিনি ২৫০ টিরও বেশি বাল্ব এবং ১০০ টিরও বেশি কাচের বোতল খেয়েছেন।

পাথর খাওয়ার নেশাঃ

৪৬ বছর বয়সী তেরেসা। তার আবেশ একটু অন্যরকম। তার কাছে পাথর খুব প্রিয় এবং পাথর খেতে ভালোবাসেন। জানা গেছে তিনি গত ২২ বছর ধরে পাথর খেয়ে বেঁচে আছেন। এইভাবে নুড়ি খাওয়ার ফলে তার পেটে ব্যথা হয় এবং এমনকি তার সমস্ত দাঁত অকালে পড়ে যায়। কিন্তু অভ্যাস ছাড়তে পারেননি।

পাথর খাওয়ার নেশাঃ

তবে ধরা যাক যে এখানে পাথর খাওয়ার অর্থ এই নয় যে একজন সারাজীবন বা পাথর খেয়ে বেঁচে থাকে। যেহেতু আমরা নেশা সম্পর্কে কথা বলছি, তাই মনে রাখা অপরিহার্য যে যারা নেশা করে তারা কখনই নেশা সবসময় করে না অথবা নেশার দ্রব্য খেয়ে সারা জীবন সে বেঁচে থাকতে পারেনা। তাকে নিয়মিত অন্যান্য খাবার গ্রহণ করতে হয়।

ডিটারজেন্ট খাওয়ার নেশাঃ

ব্যক্তির হার্ড পানীয় পান। কিন্তু ১৯ বছর বয়সী আমেরিকান গ্রামবাসী টেম্পেস্ট হেন্ডারসন সাবান এবং ডিটারজেন্টকে অনেক ভালোবাসে। তার যদি প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে পাঁচ বার সাবান না খেতে পারে তাহলে তার নাকি চলে না।

চিকিত্সকরা জানিয়েছেন, হেন্ডারসন PICA নামক একটি বিরল ব্যাধি থেকে শোক করছেন। এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তি বিভিন্ন ধাতব বস্তু, টিন, চক, ব্যাটারি, বিভিন্ন খনিজ উন্নয়ন খেতে পছন্দ করেন।

চুল ছিঁড়ে ফেলার নেশাঃ

আপনি সম্ভবত অনেক লোককে খেলার সময় চুল টানতে দেখেছেন। অথবা বসে বসে কিছু ভাবছেন, অবিরাম চুল টানছেন। ভ্রু ওঠাও এক ধরনের নেশা, ছেঁড়া চুলের নেশা।

আর এই আসক্তিকে বলা হয়- ট্রাইকোটিলোম্যানিয়া। এই অবস্থায় থাকা লোকেরা কেবল অজান্তেই তাদের চুল ছিঁড়ে না, তাদের ভ্রুও ছিঁড়ে ফেলে। ১৩-১৯ বছর বয়সী এবং সবেমাত্র বয়ঃসন্ধিতে প্রবেশকারীদের মধ্যে এই রোগটি বেশি দেখা যায়। তারা মূলত অতিরিক্ত চিন্তার কারণে আসক্ত হয়।

সোশ্যাল মিডিয়া আসক্তি:-

বর্তমানে অনেক তরুণ-তরুণী এই নেশায় জড়িয়ে পড়েছে। হয়তো আপনিও। কিছুক্ষণ পড়া, ফোনের নোটিফিকেশন চেক করা, কিছুক্ষণ লেখা, ফোন দিয়ে ইমেল চেক করা বা অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া চেক করা সবই এই আসক্তির লক্ষণ।

তবে এটি তাদের কাছে স্বাভাবিক মনে হলেও এটি খুবই অস্বাভাবিক। ফলে মানসিক ভাঙ্গনের সাথে সাথে মেজাজ কম, খিটখিটে ভাব, বিষণ্ণতা ইত্যাদির ঝুঁকি বেড়ে যায়। আপনার মোবাইল ডিভাইসে অ্যাপ পাওয়ার ব্যবহার করে আপনি Facebook বা অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়াতে কতটা সময় ব্যয় করেন তা আপনি দেখতে পারেন। যত তাড়াতাড়ি আপনি এই আসক্তি থেকে মুক্তি পাবেন, এটি আপনার এবং আপনার ভবিষ্যতের জন্য ততই মঙ্গলজনক হবে।

বরফ খাওয়ার প্রতি আসক্ত:-

এই আসক্তিতে যে কেউ আক্রান্ত হতে পারে। এই আসক্তিটিকে প্যাগোফ্যাগিয়া বলা হয় এবং আমরা যেমন গাম চিবিয়ে খাই, আক্রান্ত ব্যক্তি বরফের টুকরো চিবানো পছন্দ করেন। এই ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তিরা বরফ বা অনুরূপ খাবার খেতে পছন্দ করেন। তারা দিনে বেশ কিছু বরফের টুকরো চিবিয়ে খায়।

গবেষকদের মতে, এটি আসলে মানুষের রক্তে আয়রনের ঘাটতির লক্ষণ।

মুত্র পান করার নেশাঃ

কোভিড-১৯ মহামারী চলাকালীন, আপনি নিশ্চয়ই টিভিতে বা আপনার ফোনে গোমূত্র পান করার কথা শুনেছেন। কিন্তু আপনি কি কখনও নিজের প্রস্রাব পান করার কথা শুনেছেন? ভয় লাগে তাই না! ক্যারি নামের এক মহিলা যখন নিজের প্রস্রাব পান করেছিলেন তখন হতবাক হয়েছিলেন। এখন পর্যন্ত, তিনি প্রায় কয়েক গ্যালন প্রস্রাব পান করেছেন। তার মতে, তিনি প্রস্রাবের স্বাদ এবং গন্ধ পছন্দ করেন।

এই অদ্ভুত আসক্তিগুলির মধ্যে কোনটি আপনি একেবারে ঘৃণা করেন তা আমাদের জানাতে ভুলবেন না। প্রতিদিনের আপডেট পেতে আমাদের এই ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে ভুলবেন না।

সুস্থ থাকুন এবং নিরাপদে থাকুন এবং পরবর্তীতে আপনারা কি বিষয়ে তথ্য পেতে চান সেটি কমেন্টে জানিয়ে দিন ধন্যবাদ।

Leave a Comment